Get Up to 40% OFF New Eyeglasses For MenWomen * Limited time only.

Polarized লেন্স কী?

Polarized লেন্স কী?

ধরুন, আপনি রাস্তা দিয়ে হাঁটছেন। সামনে থেকে একটি সাদা রঙের সেডানের বনেটে সূর্য্যের আলো প্রতিফলিত হয়ে গিয়ে পড়লো সরাসরি আপনার চোখে। হঠাৎ করেই ভীষণ তীব্র আলোর ঝলকানি চোখে পড়ায় আপনি কিছুক্ষণ ধরে বাকিসব প্রায় অন্ধকার দেখতে লাগলেন। রাস্তাঘাটে এরকম সমস্যাতে আমরা অনেকেই কমবেশী পড়েছি।

পোলারাইজড লেন্স কী?

সাধারণত জলে নামলে কিংবা স্থলেও বেশ কিছু ‘বাড়তি আলো’ আলোর প্রতিফলনের মাধ্যমে এসে আমাদের চোখে প্রবেশ করে। ফলে কিছুক্ষণের জন্য আমাদের চোখ ধাঁধিয়ে যায় যেটি আসলে একপ্রকারের ডিসকম্ফোর্ট সৃষ্টি করে। পোলারাইজড লেন্স এমন একটি লেন্স যেটি তার একটি বিশেষ ফিল্টারের মাধ্যমে এই প্রতিফলিত বাড়তি আলোকে আটকে দেয়, ফলে আমরা ঠিক ততটুকুই দেখতে পাই, যতটুকু আমাদের দেখা দরকার। আর এটি দিয়ে সানগ্লাস তৈরী করলে সেটিকে পোলারাইজড সানগ্লাস বলা হয়।

যারা জলে কাজ করেন কিংবা, জলে থাকতে পছন্দ করেন, তাদের জন্য সর্বোত্তম লেন্স হচ্ছে পোলারাইজড লেন্স কারণ এটি জলের তল থেকেও প্রতিফলিত আলোকে চোখে আসতে দেয় না। শুধু যে জলে থাকলেই এ জাতীয় লেন্স খুব কাজে দেয় তাও নয়, বরং আপনি যদি ড্রাইভিং করেন কিংবা আপনার যদি চোখ ধাঁধানো আলো বিরক্ত লাগে তাহলেও আপনি পোলারাইজড লেন্স ব্যাবহার করতে পারেন। এটি যে শুধু বাড়তি আলো আটকে দেয় তাই নয়, বরং ক্ষতিকর ইউভিএ এবং ইউভিবি আলোকেও চোখে যেতে দেয় না।

ড্রাইভিং এর জন্যও পোলারাইজড লেন্স বেশ কার্যকর।

Polarized এবং 100% UV সুরক্ষা সানগ্লাস সাহায্য করে:

  • সূর্যের পুরো দিন পরে চোখের জল, কোন ক্লান্ত চোখ হ্রাস করো না
  • প্রতিফলন এবং আলোর হ্রাস (বিশেষ করে সংবেদনশীল চোখ বা সার্জারি পুনরুদ্ধারের পরে তাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ)
  • ক্ষতিকারক UV রেগুলির বিরুদ্ধে আপনার চোখ রক্ষা করুন, দীর্ঘমেয়াদে আপনার দৃষ্টিতে ক্ষতি কমিয়ে আনা
  • বিপরীতে এবং চাক্ষুষ স্বচ্ছতা উন্নত করুন

সাধারণ এবং পোলারাইজড চশমার মধ্যে পার্থক্যঃ

সাধারণ চশনা যেখানে সবরকম আলোই আপনার চোখে যেতে দেয়, সেখানে পোলারাইজড চশমা অতি উজ্জ্বল আলোকে আটকে দিয়ে আপনার চোখে যেতে দেয়না।

সাধারণ এবং পোলারাইজড চশমার মধ্যে কোনটি বেশী ভালো?

সাধারণ এবং পোলারাইজড চশমার মধ্যে কোনটি ভালো, সেটি আসলে অনেকটাই নির্ভর করে আপনার পেশার উপরে। পোলারাইজড চশমা যেমন বাড়তি আলোকে চোখে আসতে দেয়না, তেমনি এটি এলসিডি, এটিএম কিংবা ফোনের স্ক্রিন থেকেও কিছুটা আলো চোখে আসতে দেয়না। ফলে আপনি যদি এমন কোথাও কাজ করেন, যেখানে এসব স্ক্রিনের সাহায্যে আপনাকে কাজ করতে হয়, তাহলে সাধারণ চশমাই ভালো। আবার যদি কোথাও ঘুরতে যান বা এমন পরিবেশে থাকেন অথবা কাজ করেন যেখানে আলো খুব বেশী প্রতিফলিত হয়ে আপনার বিরক্তি সৃষ্টি করে, সেক্ষেত্রে পোলারাইজড চশনা ব্যাবহার করা উত্তম।

তবে, চোখের স্ট্রেইন দূর করার জন্য কিংবা চোখ ভালো রাখার জন্য মোটের উপরে পোলারাইজড চশমা ভালো।

ড্রাইভিং সেইফ সানগ্লাসঃ

ড্রাইভিং এর সময়েও সঠিক সানগ্লাস বেছে নেয়া খুবই জরুরী। কিছু সানগ্লাস হয়ত গাড়ি চালানোর জন্য পর্যাপ্ত আলো চোখে আসতে দেয়না কিংবা আপনার রঙ চেনার ক্ষমতাকে কমিয়ে দেয় যেগুলো গাড়ি চালানোর জন্য খুবই বিপদজ্বনক।

তো, গাড়ি চালানোর জন্য মোটামুটি আদর্শ সানগ্লাসগুলোকে ( যেগুলো উপরোক্ত সমস্যার সৃষ্টি করে না) ড্রাইভিং সেইফ হিসেবে সার্টিফাই করা হয়৷

LEAVE A COMMENT

Your email address will not be published. Required fields are marked *